Bangla sms

ডাবের পানির যত উপকারিতা – একটু খেয়াল করুন

মূল প্রতিপাদ্য বিষয় : ডাবের পানির উপকারিতা, ডাবের পানির গুন, ডাবের পানির গুনাগুন, ডাবের পানির গুনাবলী, ডাবের পানির উপাদান, ডাবের পানির উপকারীতা, ডাবের পানিতে কি থাকে, ডাবের পানি, নারিকেল, নারিকেলের পানি ইত্যাদি বিষয়ে আলোচনা।

বাংলাদেশে সর্বত্র এবং সারা বছর প্রচুর পরিমাণে ডাব বা নারিকেল উৎপাদন হয়। এটি মানুষের শরীরের জন্য বেশ উপকারী। বিশেষ করে ডাব বা নারিকেলের পানি নানা গুণে সমৃদ্ধ। আমরা অনেকেই হয়ত এগুলো সম্পর্কে জানি না। আর খালি পেটে নারকেলের পানি স্বাস্থ্যের জন্য বেশি উপকারী বলে গবেষণায় দেখা গেছে। সকালৈ এক কাপ ডাব বা নারিকেলের পানি পান করলে শরীরের তাপমাত্রা ঠিক থাকে এবং রক্তচাপ স্বাভাবিক মাত্রায় ধরে রাখতে সাহায্য করে।

ডাব বা নারিকেলের পানির উপকারিতা :-

১. ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণ: নারিকেলের পানি ব্লাড সার্কুলেশন উন্নত করে, উচ্চ রক্তচাপ কমায় ও হার্ট অ্যাটাক এবং অন্যান্য হৃৎপিণ্ড সংক্রান্ত রোগের ঝুঁকি কমায়। এটি রক্তে সুগারের মাত্রাও নিয়ন্ত্রণে রাখে।

২. থাইরয়েডের সমস্যায়: নারিকেলের পানি থাইরয়েডের সমস্যা সমাধানে বেশ উপাকারী। নিয়মিত নারিকেলের পানি পান করলে সহজে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন। এটি কিডনি সমস্যার জন্যও বেশ কার্যকর।

৩. ওজন কমায়: আপনি যদি আপনার শরীরের ওজন কমাতে চান তাহলে প্রতিদিন অবশ্যই আপনাকে নারিকেলের পানি পান করতে হবে। নারিকেলের পানি মানুষের শরীরের চর্বি কমায়।

ডাবের পানির উপকারিতা

৪. গর্ভবতী নারীদের ক্ষেত্রে: নারিকেলের পানি গর্ভবতী নারীদের কোষ্ঠকাঠিন্য সমস্যা দূর করে ও হজম শক্তি বৃদ্ধি করে।

৫. ইমিউন সিস্টেম বৃদ্ধি: এটিতে রিবোফ্লাভিন, থিয়ামিন, নিয়াসিন ও পাইরিডক্সিন এর মত নানা পুষ্টিগুণ ও ভিটামিনে সমৃদ্ধ। এতে এন্টি-ভাইরাস ও এন্টি ব্যাকটেরিয়ার ক্ষমতা রয়েছে। এটি শরীরের ইমিউন সিস্টেম বৃদ্ধি করে এবং ইনফ্লুয়েঞ্জার মত বিভিন্ন ভাইরাসের হাত থেকে মানুষকে মুক্তি দেয়।

৬. অ্যাসিডিটি কমাতে: পেটের দূষিত পদার্থ দূর করে নারিকেলের পানি অ্যাসিডিটির সমস্যা রোধ করে।

৭. কিডনির কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি: নারিকেলের পানিতে ম্যাগনেসিয়াম, পটাসিয়াম ও খনিজের মত পদার্থ রয়েছে। এটি মানুষকে কিডনি সমস্যা থেকে মুক্তি দেয়। এটি প্রস্রাব উৎপাদন করে ও প্রস্রাবের প্রবাহ বাড়ায়।

৮. ত্বকের যত্নে: আপনার যদি মুখে ব্রন বা ফুসকুড়ির মত সমস্যা থাকে তাহলে কয়েকদিন নারিকেলের পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। তাহলে দেখবেন আপনার চেহারায় ঔজ্জ্বল্য ভাব আসছে ও তারুণ্য ফিরে পাচ্ছেন।

৯. মূত্রাশয় এবং মূত্রনালীর সমস্যায়: নারিকেলের পানি মূত্রাশয় এবং মূত্রনালীর সমস্যা সমাধানে দারুন কার্যকরী। এটি মূত্রনালী পরিস্কার করে সংক্রমণ থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে।

১০. ক্লান্তি দূর করতে: দীর্ঘস্থায়ী ক্লান্তি দূর করতে নারিকেলের পানির বিকল্প নেই। বিশেষজ্ঞদের মতে, দৈনিক ৪০-৫০ মিলি নারিকেলের পানি শরীরে ক্লান্তি দূর করতে দারুণ কাজ করবে।

প্রিয় পাঠক বন্ধুরা ডাবের পানির উপকারিতা সম্পর্কে তো অনেক আলোচনা হল। যদি আমার সংগ্রহ করা টিপস্‌ সমূহ আপনাদের সামান্যতমও উপকারে আসে তাহলে আপনার বন্ধুদের নিকট শেয়ার করতে ভুলবেন না। ধন্যবাদ। আগামীতে আরো নতুন নতুন টিপস্‌ বা আর্টিকেল নিয়ে আপনার সামনে হাজির হওয়ার প্রত্যাশায় আজকের মত বিদায়, আল্লাহ হাফেজ।